Web Design

ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট কি? কিভাবে ওয়েব ডিজাইন শিখবেন।

আসসালামু আলাইকুম, আপনি কি ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট শিখতে আগ্রহী? আপনি কি একজন বিগেনার যে কিনা Web Design & Development কি সেই সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে কৌতুহল? তাহলে আর্টিকেলটি আপনার জন্য। এই আর্টিকেলের মাধ্যমে আমি ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট শিখতে চাওয়া একজন নতুন শিক্ষার্থীদের মনে যেসব প্রশ্ন থাকে এবং যেসব জিনিস গুলো জানা দরকার তার একটি স্পষ্ট ধারণা দেওয়ার চেষ্টা করবো।

ওয়েব ডিজাইন কি বা ওয়েব ডেভেলপমেন্ট কি, কিভাবে এবং কোথায় ওয়েব ডিজাইন শিখবেন, ওয়েব ডিজাইন ক্যারিয়ার, ওয়েব ডিজাইন করে ফ্রিল্যান্সিং সহ আরো বিভিন্ন বিষয় গুলো সম্পর্কে ধাপে ধাপে আলোচনা করবো। আশা করি যে বা যিনি ওয়েব ডিজাইন কি জিনিস এবং আনুসংঙ্গিক যে প্রশ্ন গুলো থাকে সকল প্রশ্নের উত্তর গুলো এই আর্টিকেলের মাধ্যমে পেয়ে যাবেন।

Table of Contents

ওয়েবসাইটের ধরন (Type of website)

Web Design কি তা সম্পর্কে বিস্তারিত জানার আগে আমাদের কে জানার দরকার ওয়েবসাইট কয় ধরনের হয়ে থাকে। সাধারণত ওয়েবসাইট দুই ধরনের হয়ে থাকে। যথাঃ

  1. স্ট্যাটিক ওয়েবসাইট (Static Website)
  2. ডায়নামিক ওয়েবসাইট (Dynamic Website)

স্ট্যাটিক ওয়েবসাইট ওয়েবসাইট কাকে বলে?

যে সব ওয়েবসাইট ভিজিট করলে সকল ভিজিটরা একই জিনিস দেখতে পাই অর্থাৎ কোন তথ্যের পরিবর্তন হয় না সে সকল ওয়েবসাইট গুলোকে স্ট্যাটিক ওয়েবসাইট বলা হয়ে থাকে। স্ট্যাটিক ওয়েবসাইট HTML,CSS ও জাভাস্ক্রিপ্ট ব্যবহার করে তৈরি করা হয়ে থাকে। স্ট্যাটিক ওয়েবসাইটে কোন কিছু পরিবর্তন করতে হলে সেটি মূল কোডিং পরিবর্তন করে ওয়েবসাইট আপডেট করতে হয়।

ডায়নামিক ওয়েবসাইট কাকে বলে?

সাধারণত যে সকল ওয়েবসাইটের তথ্য বা কনটেন্ট সমূহ পরিবর্তনশীল হয়ে থাকে সেই সকল ওয়েবসাইট গুলোকে ডায়নামিক ওয়েবসাইট বলা হয়ে থাকে। উদারহণ হিসাবে আমরা ফেসবুকের কথা চিন্তা করতে পারি কারণ ফেসবুক একটি ডায়নামিক ওয়েবসাইট। ফেসবুক ওয়েবসাইট ভিজিট করলে আমরা লগিন করতে পারি এবং লগিন করার পর আমরা আমাদের প্রোফাইলের উপর ভিত্তি করে বিভিন্ন কনটেন্ট দেখতে পারি এবং অন্য জন ভিজিট করলে সে তার প্রোফাইলের উপর ভিত্তি করে বিভিন্ন কনটেন্ট দেখতে পাই। ডায়নামিক ওয়েবসাইটে কনটেন্ট পরিবর্তন করার জন্য মূল কোডে হাত দিয়ে হয় না ওয়েবসাইট রানিং থাকা অবস্থায় কনটেন্ট পরিবর্তন করার বিশেষ ড্যাশবোর্ড বা এডমিন প্যানেলের মাধ্যমে।

স্ট্যাটিক ও ডায়নামিক ওয়েবসাইটের মধ্যে পার্থক্যঃ

নিচের সংক্ষেপে স্ট্যাটিক ওয়েবসাইট ও ডায়নামিক ওয়েসাইটের মধ্যে পার্থক্য দেওয়া হলোঃ

স্ট্যাটিক ওয়েবসাইট ডায়নামিক ওয়েবসাইট
যে সকল ওয়েবসাইটের তথ্য বা কনটেন্ট সাধারণত পরিবর্তন হয় না সে সব ওয়েবসাইট কে স্ট্যাটিক ওয়েবসাইট বলা হয়ে থাকে। যে সকল ওয়েবসাইটের তথ্য বা কনটেন্ট সাধারণত পরিবর্তনশীল সে সব ওয়েবসাইট কে ডায়নামিক ওয়েবসাইট বলা হয়ে থাকে।
স্ট্যাটিক ওয়েবসাইট চালু থাকায় অবস্থায় পরিবর্তন করা সম্ভব হয় না। কোন কিছু পরিবর্তন বা যোগ করার প্রয়োজন পড়লে সোর্স কোড পরিবর্তন করে আপডেট করা হয়। ডায়নামিক ওয়েবসাইট চালু থাকা অবস্থায় কোন যে কোন ধরনের পরিবর্তন করা সম্ভব হয়। এই ধরনের ওয়েবসাইট কোন ধরনের পরিবর্তন বা যোগ করার জন্য কোডিং এ পরিবর্তন করার প্রয়োজন পড়ে না।
ওয়েবসাইটের পেজ সংখ্যা নির্দিষ্টি। ওয়েবসাইটের পেজ সংখ্যার কোন নির্দিষ্টতা নেয়। অগণিত পেজ সংখ্যা হতে পারে।
সাধারণত স্ট্যাটিক ওয়েবসাইট HTML,CSS দিয়ে তৈরি করা হয়ে থাকে। ডায়নামাইক ওয়েবসাইট তৈরি করতে প্রোগ্রামিং ল্যাংঙ্গুয়েজ ও ডাটাবেস ব্যবহার করা হয়ে থাকে।
ওয়েবসাইট অনেক দ্রুত লোড হয়। স্ট্যাটিক ওয়েবসাইটের তুলনায় লোডিং স্পিড কম।

ওয়েব ডিজাইন কি? (What is web design in bangla)

web design

ওয়েব ডিজাইন হলো একটি ওয়েবসাইট দেখতে কেমন হবে এবং যে প্রতিষ্ঠান বা ব্যক্তির জন্য ওয়েবসাইট তৈরি করা হচ্ছে তাদের ইনফরমেশন গুলো ওয়েবসাইট কোথায় কিভাবে থাকবে তার ডিজাইন বা নকশাকে ওয়েব ডিজাইন বলা হয়ে থাকে।

সহজ ভাষায়, আমরা যখন কোন একটি ওয়েবসাইট ব্রাউজারের মাধ্যমে ভিজিট করি তারপর যে বহিরুপ বা দৃশ্য দেখতে পাই সেটি হলো ওয়েব ডিজাইন। কোন ওয়েবসাইট ভিজিট করলে আমরা বিভিন্ন ধরনের তথ্য বিভিন্ন স্থানে দেখতে পাই। ওয়েবসাইটের অনেক গুলো অংশ থাকে যার সমন্বয়ে ওয়েবসাইট তৈরি হয়ে থাকে যেমনঃ হেডার, ফুটার, মেনুবার, সাইডার বার, মেইন কনটেন্ট এরিয়া ইত্যাদি। উদাহরণ হিসাবে এখন আমার ওয়েবসাইটে যে এই লেখা পড়ছেন তার আশে পাশে উপরে নিচে দেখুন অনেক কিছু। উপরের দিকে লক্ষ করলে দেখবেন মেনুবার রয়েছে।

ওয়েবসাইটের নিচের দিকে ফুটার সেকশন রয়েছে এবং মাঝখানে আর্টিকেলটি রয়েছে এবং তার ডান পাশে সাইডবার রয়েছে। এই একটি ওয়েবসাইটের বিভিন্ন অংশ বা কম্পোনেন্ট কোথায় এবং কোন স্থানে কি ধরনের রুপে থাকবে সেটির ডিজাইন বা নকশা করে তা বাস্তবে রুপ দেওয়ায় হলো ওয়েব ডিজাইন। অর্থাৎ একটি ওয়েবসাইট যে প্রতিষ্ঠানের জন্য তৈরি করা হচ্ছে তার বিভিন্ন ইনফরমেশন ও ফিচার গুলো কথা কিভাবে দেখানো হবে কি ধরনের স্টাইলে দেখানো হবে সেটিই ওয়েব ডিজাইন এর কাজ।

আবারও যদি বলা হয় Web Design কাকে বলে? তাহলে বলা যায়, Web Design হলো একটি প্রক্রিয়া যেটির মাধ্যমে ওয়েবসাইটের বিভিন্ন ইনফরমেশন বা কম্পোনেন্ট সমূহ কোথায় কিভাবে উপস্থান করা হবে তার নকশা। অনেক সময় Web Design করা কে ওয়েবসাইট লেআউট তৈরি করাও বলা হয়ে থাকে।

ওয়েব ডেভেলপমেন্ট কি? (What is web development in bangla)

web development

ওয়েব ডেভেলপমেন্ট হলো একটি ওয়েবসাইট তৈরি করা থেকে শুরু করে ওয়েবসাইটকে ডায়নামিক করা ও ডাটাবেসের সাথে ইন্ট্রিগ্রেটেড করা সহ ইন্টারনেটে হোস্ট করার প্রক্রিয়া। সহজ ভাবে বলতে পারি, একটি স্ট্যাটিক ওয়েবসাইট কে ডায়নামিক ওয়েবসাইটে রুপান্তর করার প্রক্রিয়াকে ওয়েব ডেভেলপমেন্ট বলা হয়ে থাকে।

Web Design& Development কি এটি ভালো করে বুঝতে হলে আরো বিস্তারিত করে আলাদা আলাদা ভাবে আর্টিকেল লেখা যাবে। কিন্তু এখন এতো কিছু জানার সঠিক সময় না এই ছোট আর্টিকেলের মাধ্যমে শুধু সংক্ষেপে ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট কি জিনিস সেটি সংক্ষেপে বলার চেষ্টা করেছি। ভবিষ্যতে আপনি যখন এটি নিয়ে কাজ করার শুরু করবেন তখন সংজ্ঞা গুলোর মানে বুঝতে শুরু করবেন এখন যদি সব কিছু নাও বুঝে থাকেন চিন্তার কোন কারণ নেয়।

আরো পড়ুনঃ 

ওয়েব হোস্টিং কি? হোস্টিং কত প্রকার – বিস্তারিত আলোচনা।

ডোমেইন কি? ডোমেইন কত প্রকার ও কি কি?

ওয়েব ডিজাইনার কাকে বলে?

যে ব্যক্তি ওয়েবসাইট ডিজাইন করে থাকে সেই ব্যক্তিকে ওয়েব ডিজাইনার বলা হয়ে থাকে।

ওয়েব ডেভেলপার কাকে বলে?

যে ব্যক্তি ওয়েব ডেভেলপমেন্ট সম্পর্কি কাজ কর্ম করে থাকে সেই ব্যক্তিকে ওয়েব ডেভেলপার বলা হয়ে থাকে।

ফুল স্ট্যাক ডেভেলপার কাকে বলে?

যে ব্যক্তি একই সাথে ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট এর কাজ করে থাকে সেই ব্যক্তিকে ফুল স্ট্যাক ওয়েব ডেভেলপার বলা হয়ে থাকে।

ওয়েবসাইটের অংশ

ওয়েবসাইট বানানোর প্রক্রিয়া ওয়েব ডিজাইন ও ওয়েব ডেভেলপমেন্ট ছাড়াও আরো দুটি নামে পরিচিত। যথাঃ

১। ফ্রন্টএন্ড ডেভেলপমেন্ট (Frontend Development)

২। ব্যাকএন্ড ডেভেলপমেন্ট (Backend Development)

১। ফ্রন্টএন্ড ডেভেলপমেন্টঃ একটি ওয়েবসাইট ভিজিট করলে আমরা যে ইন্টারফেস টি দেখতে পাই সেটি হচ্ছে ওয়েবসাইটের Frontend পার্ট। যেটিকে আমরা ওয়েব ডিজাইন ও বলে থাকি। ওয়েব ডিজাইন ও ফ্রন্টএন্ড ডেভেলপমেন্ট একই জিনিস শুধু আলাদা একটা নাম হিসাবে ডাকা হয়ে থাকে এই আর কি। যে ব্যক্তি ওয়েবসাইটের ফ্রন্টএন্ড পার্ট নিয়ে কাজ করে সেই ব্যক্তিকে Frontend Developer বলা হয়ে থাকে।

২। ব্যাকএন্ড ডেভেলপমেন্টঃ একটি ওয়েবসাইট ডায়নামিক করা ডাটাবেসের সাথে কাজ করা এবং বিভিন্ন ফিচারস বা ফাংশন ইত্যাদি তৈরি করাকে ব্যাকএন্ড ডেভেলপমেন্ট এর কাজ বলা হচ্ছে। অর্থাৎ সাধারণত ইউজাররা যে ওয়েব পেজ দেখে তার বিপরীতে কি ধরনের কাজ কর্ম হয়ে সে সকল কাজ করার প্রক্রিয়া হলো ব্যাকএন্ড ডেভেলপমেন্ট।

ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট ক্যারিয়ার | ওয়েব ডিজাইন এর ভবিষ্যৎ

আমরা এতোক্ষণ ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট কি সেটি সম্পর্কে জানলাম সেই সাথে এই দুটি জিনিসকে অন্য কোন নামে ডাকা হয় সেটি সম্পর্কে জানলাম। এখন আমরা জানবো Web Design & Development শিখে আমরা কিভাবে আইটি সেক্টরে নিজের ভালো ক্যারিয়ার দাঁড় করাতে পারি। শুরুতেই বলে নিতে চাই আমি কোন এক্সপার্ট ব্যক্তি নয় যে আমার সব কথা ঠিক হবে আমি আপনাদের মতো একজন সাধারণ শিক্ষার্থী যে কিনা নিজেও ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট বিষয়ে চর্চা করছে তাই ভুল-ত্রুটি বর্জনীয়।

আমি এই আর্টিকেলের মাধ্যমে নিজের জানা ও দেখা জিনিস গুলো শেখার করবো এবং আপনাদের সবাইকে একটি স্পষ্ট ধারোনা দেওয়ার চেষ্টা করবো আশা করি আপনারা উপকৃত হবেন। হয়তো অনেকেই শুনেছেন যে ওয়েব নিয়ে অনেকেই কাজ করে এই সেক্টরে দাম নেয় বা এই সেই নানা ধরনের কথা সেই সকল কথার উত্তরও আপনারা পেয়ে যাবেন।

এক সময় ইন্টারনেট বা ওয়েব এর কাজ ছিল কোন তথ্য বা ইনফরমেশন পৃথিবীর এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে পাঠানো। কিন্তু বর্তমান সময় শুধু ইন্টারনেট ব্যবহার করে তথ্য আদান-প্রদান করা হয় না। ইন্টারনেট ও ওয়েবকে ঘিরে তৈরি হয়েছে নানা রকম ব্যবসা ও যোগাযোগ ব্যবস্থা। যেখানে এক সময় নামি দামি কোম্পানি ওয়েবসাইট থাকত সেখানে এখন প্রযুক্তি উন্নত হওয়ার কারণে ছোট খাটো সকল ধরনের কোম্পানি তাদের ব্যবসাকে আন্তজার্তিক ভাবে নিজেদের পরিচয় তুলে ধরা জন্য ওয়েবাইট তৈরি করছে।

কারণ একটি ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আপনি নিজের ব্যবসা সম্পর্কে গোটা বিশ্বকে পরিচিতি লাভ করাতে পারেন। বর্তমান সময়ে আমরা ইন্টারনেটে এতো অভ্যস্ত যে অনলাইন সময় কাটানো থেকে শুরু করে শপিং করা, বন্ধুদের সাথে আড্ডা দেওয়া সব কিছু করছি যেটির মাধ্যম হলো এই ওয়েব। বর্তমান সময়ের এই জন্য নিজের কোম্পানিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে প্রতিষ্ঠান গুলো নিজেদের ওয়েবসাইট তৈরি করার মাধ্যমে নিজেদের পরিচয় ইন্টারনেটে রাখছে এবং সেই সাথে তাদের পণ্য বা সেবা গুলো পৌঁছিয়ে দিচ্ছে।

এই কারণে চাহিদা বেড়েছে দক্ষ ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপারদের। অনেকেই বলতে দেখবেন যে ওয়েব শিখে কোন লাভ নেয়, এটা সবাই শিখছে, এটার দাম বাজারে এখন আর নেয় ইত্যাদি ইত্যাদি রকমের অদ্ভুত সব কথা। কিন্তু বাস্তবতা ভিন্ন হ্যাঁ ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট সেক্টরে ক্যারিয়ার অনেক ভালো বিধায় অনেক লোকজন এটি নিয়ে আগ্রহ প্রকাশ করে আর শিখতে থাকে কিন্তু খুব কম আছে যারা এই শিক্ষার কাজটা চালিয়ে যায়।

আমরা যতটা দেখি এতো লোকজন এই জিনিসটা শিখছে কিন্তু তার বেশির ভাগ এক সময় হাল ছেড়ে দেয় আর না হয় অদক্ষ থাকে স্কিলের কমতি থাকে। আর প্রতিদিন এতো নিত্য নতুন ওয়েবসাইট তৈরি হচ্ছে বলে যে আপনার কাজ কমে যাবে না তা কিন্তু না। একবার ভাবুন একটা ওয়েবসাইট তৈরি করলেই কি সব শেষ হয়ে যায়? না যায় না একটি ওয়েবসাইট তৈরি করার পর ও সেটির ডেভেলপমেন্ট ও রক্ষণাবেক্ষনের প্রয়োজন পড়ে থাকে। যার জন্য ঐ সব কে কি বললো সেটি নিয়ে চিন্তা না করে আপনি যেটি শিখতে চান সেটি মনোযোগ ও নিজের সর্বোচ্চটা দিয়ে শিখতে থাকুন। আশা করি, তাহলে আইটি সেক্টরে নিজের একটি ভালো ক্যারিয়ার গড়তে পারবেন।

ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট শিখতে কি কি জানা লাগবে?

একজন ভালো ওয়েব ডিজাইনার ও ডেভেলপার হওয়ার জন্য যেসব বিষয় শিখার প্রয়োজন সে সকল বিষয় নিয়ে একটি পূর্ণাঙ্গ আর্টিকেল দেওয়ার চেষ্টা করবো যা আমি অন্যান্য রিসোর্স থেকে পেয়েছি। কিন্তু ততো দিন কি আপনারা বসে থাকবেন ? একদম না অনলাইনে অনেক রিসোর্স রয়েছে যেখানে একজন ভালো ওয়েব ডিজাইন বা ডেভেলপার হতে কি কি শিখা লাগবে এবং কোথায় শিখবেন সে সকল রিসোর্স গুলো দেওয়া আছে।

এই সকল ওয়েবসাইটের গুলোর মধ্যে দারূন একটি ওয়েবসাইট হলো https://roadmap.sh/  এটি। এইখানে একজন Frontend Developer অথবা Backend Developer হতে গেলে কি কি জিনিস শিখা লাগবে কোথায় থেকে শিখতে পারেন সকল কিছু রোডম্যাপ দেওয়া আছে। অর্থাৎ কি কি শিখতে হবে, কোনটার পর কি শিখবেন, কোন একটি জিনিসের অল্টারনেটিভ হিসাবে কি শিখতে পারেন, বর্তমান সময়ে কোন জিনিসটা শেখা ভালো হবে সেটিও রেকমেন্ড করা আছে এই রোডম্যাপে। ওয়েবসাইট টি ভিজিট করে এক্সপ্লোর করার চেষ্টা করুন আশা করি অনেক সুন্দর একটি পথ পাবেন।

কোথায় ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট শিখবেন?

আপনি যদি নিজে নিজে ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট শিখতে চান তাহলে অনলাইনে অনেক রিসোর্স(ব্লগ, ইউটিউব, বই ইত্যাদি) পেয়ে যাবেন যেখান থেকে আপনি ঘরে বসেই শিখতে পারবেন। এছাড়াও আপনি ভালো একটি আইটি ট্রেনিং প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হতে পারেন কিন্তু এই ক্ষেত্রে লক্ষ্য রাখবেন এমন কোন প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হবেন না যারা কাজ শেখাকে প্রাধান্য না দিয়ে আপনাকে ফ্রিল্যান্সিং করে হাজার হাজার টাকা ইনকামের স্বপ্ন দেখায়। আমি ব্যক্তিগত ভাবে আইটি প্রতিষ্ঠান গুলোকে পছন্দ করি না কারণ এদের বেশির ভাগেরই উদ্দেশ্য থাকে ফ্রিল্যান্সিং এর নামে আপনাকে ভুল বুঝিয়ে কোর্সে ভর্তি করানো এবং তাদের ব্যববসায় মোটা অংকের টাকা আয় করা।

সব প্রতিষ্ঠান যে আবার এমন হয় তাও না কিন্তু বেশির ভাগই এমন হয়। এই ক্ষেত্রে শুধু আপনার কাজ হবে এমন কোন প্রতিষ্ঠানে ভর্তি না হওয়া যারা কাজ শিখানোর আগে ইনকামের নানান ধরনের কথা বলে। কারণ ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট শিখার জার্নি না অল্প সময়ের না বেশ ভালো একটা সময়ের প্রয়োজন। এর মধ্যে আপনার মাথায় যদি ইনকামের চিন্তা ঢুকে তাহলে কাজে মনোযোগ দিতে পারবেন না। এছাড়াও আপনার যদি ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্টে কোন ধরনের আগ্রহ না থেকে থাকে শুধু অন্যের মুখে শুনে এসেছেন এটার অনেক দাম তাই শিখতে এসেছেন তাহলে আপনি ভেঙ্গে পড়বেন এক সময়।

সব চেয়ে ভালো উপায় হলো এই জিনিস গুলো নিজে নিজে বিভিন্ন ব্লগ, ইউটিউটবের ভিডিও টিউটোরিয়াল, বই ইত্যাদি থেকে শিখা। এর ফলে যখন নতুন কিছু শিখার প্রয়োজন পড়বে তখন অন্য কারো আশায় বসে থাকতে হবে না আপনি নিজেই অনলাইন থেকে রিসোর্স খুঁজে বের করে শিখতে পারবেন। এই আর্টিকেল উদ্দেশ্য হচ্ছে আপনাদের সাথে Web Design & Development এর সাথে পরিচয় করিয়ে দেওয়া। আপনারা কোথায় কিভাবে শিখবেন সেই সকল রিসোর্স অন্য আরেকটি পোস্টে আমি দিয়ে দিবো সে জন্য এই ব্লগে চোখ রাখতে পারেন।

ফ্রিতে ওয়েব ডিজাইন শিখার ওয়েবসাইটঃ

ওয়েব ডিজাইন বা ফ্রন্টএন্ড ডেভেলপমেন্ট করতে কি কি শিখতে হয়?

ওয়েব ডিজাইন করতে বেশ কয়েকটি জিনিস শিখার প্রয়োজন পড়ে থাকে যার কিছুটা এইখানে সংক্ষেপে উল্লেখ্য করা হলো এই গুলো নিয়ে আমি আরো বিস্তারিত পোস্ট করবো পরবর্তীতে। যেসব জিনিস শিখার প্রয়োজন পড়ে থাকে একজন ওয়েব ডিজাইন বা ফ্রন্টএন্ড ডেভেলপার হিসাবে তার লিস্ট নিচে দেওয়া হলোঃ

  • HTML
  • CSS
  • Responsive Web Design
  • CSS Frameworks (Bootstrap/Tailwind CSS/Material UI etc).
  • Javascript
  • Javascript Frameworks Or Libary (like React.js, Vue.js, Angular etc)

ইত্যাদি বিষয় গুলো শিখতে হবে এই জিনিস গুলোর মধ্যে আবার সাব সেকশন আছে । যেকোন গুলো আমি অন্য এক আর্টিকেলে লিখবো সেটি বার বার বলতেছি কারণ এই বিষয় গুলো আরো গভীর ভাবে আলোচনা করতে হবে যেটি এই এক পোস্টে সম্ভব না অনেক বড় হয়ে যাবে পোস্ট তখন আপনারাও পড়তে চাইবেন না তাই অন্য আর্টিকেলে।

ওয়েব ডেভেলপমেন্ট বা ব্যাকএন্ড ডেভেলপমেন্ট করতে কি কি শিখতে হয়?

ওয়েব ডেভেলপমেন্ট করতে ওয়েব ডিজাইন সম্পর্কে বেসিক জ্ঞান থাকার প্রয়োজন আছে যেমন HTML,CSS, Javascript এই গুলো জানা ওয়েব ডেভেলপমেন্ট শিখার আগে গুরুত্বপূর্ণ। ওয়েব ডেভেপলেমেন্ট করতে গেলে বেশ কয়েকটি জিনিস শেখার প্রয়োজন সেই গুলোর মধ্যে আবার অনেক ভাগ রয়েছে যা এই পোস্টে আমি তুলে ধরছি না।

ওয়েব ডেভেলপমেন্ট করতে প্রথম ওয়েব ডিজাইন সম্পর্ক জ্ঞান থাকতে হবে তারপর আপনাকে যেকোন একটি সার্ভার সাইড প্রোগ্রামিং ল্যাংঙ্গুয়েজ যেমন PHP, Javascript(Node.js), Python(Django) গুলোর মধ্যে একটি নির্বাচন করে সেটি শেখা শুরু করতে হবে। এখন প্রশ্ন আসতে পারে আমি কোনটা শিখবো? এই ধরনের অনেক প্রশ্ন আসবে এই জন্য আমি বলেছি পরবর্তীতে আর্টিকেল গুলোতে এই বিষয় গুলো নিয়ে লেখার চেষ্টা করবো। এছাড়াও আপনি যখন এই জিনিস গুলো নিয়ে ঘাটাঘাটি করতে যাবেন নিজেই বুঝতে পারবেন কোনটা শিখতে হবে না হবে। যায় হোক একটি সার্ভার সাইড প্রোগ্রামিং ভাষা নির্বাচন করে শিখার পর আপনাকে শিখতে হবে ডাটাবেস এর সাথেও আরো অনেক আনুসংঙ্গিক বিষয় আছে যেগুলো শিখার প্রয়োজন তা অন্য এক আর্টিকেলে তুলে ধরবো। এছাড়াও আমি তো একটি রোড ম্যাপের ওয়েবসাইট দিয়ে দিয়েছি সেখানে সব রকম তথ্য পেয়ে যাবেন।

ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট শিখতে কতদিন সময় লাগে?

একজন বিগেইনারের শিখার শুরুতে মনে অনেক ধরনের প্রশ্ন থাকে যার মধ্যে কমন একটি প্রশ্ন Web Design & Development শিখতে কত দিন সময় লাগতে পারে। আসলে এই প্রশ্নের কোন সঠিক উত্তর নেয় কারণ আপনার আমার বা অন্য কারো কোন একটি জিনিস শিখার ক্ষমতা একই না। কেউ কোন একটি জিনিস একাধিক বার দেখার পর বুঝতে পারে আবার কেউ একটি জিনিস একবার দেখলেই ধরে নিতে পারে। এই রকম আলাদা আলাদা ব্যক্তির আলাদা ধরনের গুণ রয়েছে তাই আপনার Web design & development শিখতে কত দিন সময় লাগবে বা কত ঘন্টা করে সময় দিলে শিখতে পারবেন সেটির কোন নির্দিষ্ট পরিমাপ নেয়। এতো কিছু চিন্তা না করে শুরু করে দিন সময়ের সাথে বুঝতে পারবেন কত সময় লাগতে পারে।

ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট শিখে আয়

কোন কিছু শিখার উদ্দেশ্য থাকে একটা পর্যায়ে গিয়ে ইনকাম করা বা নিজের ক্যারিয়ার দাঁড় করানো তাই অনেকের প্রশ্ন ওয়েব ডিজাইন করে কিভাবে আয় করবো? ওয়েব ডিজাইন ও ফ্রিল্যান্সিং নিয়েও প্রশ্ন থাকে। ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট করে আয়ের উপায় সমূহঃ

প্রাইভেট জবঃ আপনি যদি একজন দক্ষ ওয়েব ডিজাইনার বা ডেভেলপার হয়ে থাকেন তাহলে বিভিন্ন আইটি প্রতিষ্ঠান বা এজেন্সিতে বেশ ভালো বেতনে চাকুরি করতে পারেন। আপনার চাকুরির অভিজ্ঞতা যত বেশি হবে এবং নিজেকে টেকনোলজির সাথে যত আপডেট করবেন ততো ভ্যালু বাড়বে আপনার ও স্যালারির।

ফ্রিল্যান্সিংঃ আপনার কাজে দক্ষতা দিয়ে আপনি অনলাইনের বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসে কাজ করতে পারেন। এই ক্ষেত্রে বিষয়টা একটু চ্যালেঞ্জিং কারণ এইখানে আপনি নিজেই নিজের বস আপনাকে কাজ জোগার করতে হবে, আপনাকে ক্লায়েন্টের সাথে কথা বলে কাজ নিতে হবে, এক কথা আপনাকে সব কাজ করতে হবে। এছাড়াও আমার আপনার মতো অনেক লোক আছে যারা ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট শিখে মার্কেটপ্লেসে কাজ পাওয়ার চেষ্টা করছে সেই সাথে আগের সফল ফ্রিল্যান্সার গুলোতে রয়েছেই। এই জন্য কাজ পাইতে অনেকটা হিমশিম খাওয়া লাগতে পারে। আবার অনেক প্রফেশনাল ডেভেলপার ভাইয়েরা বলে থাকেন ফ্রিল্যান্সিং করার চেয়ে জব করা উত্তম এবং সহজ। কারণ কোন একটি কোম্পানির আন্ডারে কাজ করে যে অভিজ্ঞতা অর্জন করা যায় তা অন্য কোথায় সেইভাবে যায় না। প্রথম দিকে চেষ্টা করুন জব করার জব করে তারপর সেইটার সাথে ফ্রিল্যান্সিং করার চেষ্টা করতে পারেন।

এজেন্সিঃ আপনি চাইলে নিজে একটি ওয়েব এজেন্সি দিতে পারেন যেখানে আপনার ওয়েবের স্কিল দিয়ে লোকদের কাজ কর্ম করে দিবেন। যদি আপনি ভালো কাস্টমার যোগার করতে পারেন বিভিন্ন ভাবে তাহলে টি করতে পারেন। কিন্তু শুরুতেই পরামর্শ একটা দেয় বড় ভাইয়েরা যে জব করার চেষ্টা করা মিনিমাম একটা ইন্টার্ন করা এতে অভিজ্ঞতা তৈরি হবে।

উপসংহার

উপরের আর্টিকেল থেকে আমরা ওয়েব ডিজাইন কি, ওয়েব ডেভেলপমেন্ট কি, কোথায় থেকে ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট শিখতে পারি কিভাবে শিখবো, কিভাবে ওয়েব ডিজাইন করে ইত্যাদি বিষয় গুলো জানতে পারলাম। পরবর্তীতে আর্টিকেল চেষ্টা করবো ওয়েব ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট শিখার জন্য বেশ কিছু রিসোর্স দেওয়ার। ততোদিন ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন এবং আমাকে সাপোর্ট করুন।

ধনবাদ

আরো পড়ুনঃ

দ্রুত কম্পিউটার টাইপিং শেখার নিয়ম | টাইপিং মাস্টার।

কম্পিউটার প্রোগ্রামিং কি? প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ কি?

সিপ্যানেল কি? কিভাবে ব্যবহার করতে হয়। cPanel Tutorial-1

ওয়েব হোস্টিং কি? হোস্টিং কত প্রকার – বিস্তারিত আলোচনা।

কিভাবে ইউটিউব ভিডিও ডাউনলোড করবেন?

Facebook Comments Box

MD Biplop Hossain

আমি এক স্ব-ঘোষিত হাবলু যে প্রযুক্তিকে ভালোবাসে এবং সেটি নিয়ে শিখতে জানতে পছন্দ করে। এই ধারাবাহিকতায় হাবলু যা জানে ও শিখছে সেই সকল জিনিস গুলো নিয়ে লেখার মাধ্যমে আপনাদেরকে জানানোর চেষ্টা করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
error: Content is protected !!